মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

কী সেবা কীভাবে পাবেন

নাগরিক ও সরকারী পর্যায়ে সমস্যা সমূহ এবং সার্ভিস আইডেন্টিফিকেশন

সেবার ধরণ

সেবা

সেবা প্রদান/প্রাপ্তির ক্ষেত্রে অসুবিদা সমূহ

নাগরিক পর্যায়ে

সরকারী পর্যায়ে

গবাদিপশুর চিকিৎসা প্রদান প্রদান

রোগ নির্ণয়, ঔষধ প্রদান ,শল্য চিকিৎসা প্রদান,পরামর্শ প্রদান।

সেবার জন্য রোগ সমূহ-

‘ক’ শেণ্রী

ফুট এন্ড মাউথ ডিজিজ(ক্ষুরারোগ),রিন্ডারপেষ্ট,ভেসিকুলার ষ্টোমাটাইটিস,পেষ্টিডেস পেটাইটিস ইন

রুমিনেন্ট, গোট পকস, শীপ পক্স, নিউ ক্যাসল ডিজিজ (রাণীক্ষেত), এভিয়ান ইনফ্লুয়েঞ্জা।

‘খ’শ্রেণী

রেবিস,এনথা্রক্স, বস্নাক কোয়ার্টার (বাদলা) হিমোরেজিক সেপটিসেমিয়া(গলাফুলা) ফাউল পক্স(মুরগীর বসনত),মারেক্স ডিজিজ,গামবোরো ডিজিজ,ডাক ভাইরাল এন্টারাইটি(ডাক প্লেগ), পোলোরাম ডিজিজ, ফাউল কলেরা, ব্রুসেলোসিস, টিউবারকোলোসিস, বোভাইন জেনিটাল ক্যামফাইলো

ব্যা্টেরিওসিস. ভিব্রিওসিস, লেপ্টোস্পাইরোসিস, জোনস ডিজিজ,সোয়াইন ইরিসেফালাস ইনফে.

এভিয়ান টিউবারকোলোসিস, কণ্টাজিয়াস প্লুরো নিউমোনিয়া বোভাইন ভাইরাল ডাইরিয়া, ম্যালিগনেন্ট ক্যাটারাল ফিভার,

লাম্পি স্কীন ডিজিজ, ইনফেকসাস বোভাইন রাইনোট্রাকিয়াইটিন, বোভাইন ভাইরাল লিওকোসিস, ট্রিপেনোসোমিয়াসিস, ট্রাইকোমোনিয়াসিস,বেবেসিওসিস, এনাপ্লাজমোসিস, থাইলেরিওসিস, ওয়ার্বল ফ্লাই(হাইপোডারমা বোভিস এন্ড লিনেটাম), ডারমাটোমাইকোসিস, গ্ল্যান্ডার্স, আফ্রিকান হর্স সিকনেস,  ইনফেসাস ইকোয়াইন এনসেফালোমায়েলাইটিস, ইপিজোটিক লিম্ফেনজাইটিস,  ইকোয়াইন ইনফেকসাস এানমিয়া, জাপানিজ বি এনসেফালাইটিস, পাসচুরেলোসিস, কসটাজিয়াস ক্যাপরাইন প্লুরো নিউমোনিয়া, ভিবরিও ফিটাস, কিউ ফিভার, কনটাজিয়াস পাসচুলার ডার্মাটাইটিস, ব্লু টাং, মেইডি ভিস্না, এডিনোমেটোসিস, স্ক্র্যাপি, নোয়াইন ইরিসিপেলাস, ইনটেসটাইনাল সালমোনেলা ইনফেকসান,ভেসিকুলার এক্সানথিমা, ক্লাসিকেল সোয়াইন ফিভার। আফ্রি্কান সোয়াইন ফিভার, ওঢেজেসকিস ডিজিজ, এট্রোফিক গ্যাসট্রোএন্টারাইটিস, ক্যানাইন পারবোভাইরাস ইনফেকশান,ক্যানাইন হারপিস ভাইরাস ইনফেকশন, ফেলাইন ইনফেকশন এনিমিয়া, ফেলাইন লিউকেমিয়া ভাইরাস এন্ড রিলেটেড ডিজিজেস,ফেলাইন প্যান লিউকোপেনিয়া, ইনফেকসাস কেনাইন হেপাটাইটিস,ক্যানাইন ইনফ্লুয়েঞ্জা, ক্যানাইন এন্টারাইটিস, ক্যানাইন ডিস্টেম্পার,ফাউল টাইফয়েড, ফাউল গ্লেগ,এভিয়ান লিউকোসিস, ইনফেকসাস এভিয়ান এনসেফালোমাইলাইটিস,ইনফেকসাস ল্যারিনগো ট্রাকিয়াইটিস, এভিয়ান ইনফেকসাস ব্রংকাইটিস,মাইকোপ্লাজমোসিস, চিকেন এনিমিয়া ভাইরাল ইনফেকশন,ডাক ভাইরাল হেপাটাইটিস, নেকরোটিক এন্টারাইটিস, কলিব্যাসিলোসিস, গোজ ভাইরাল হেপাটাইটিস, লিমফয়েড লিউকোসিস, মাইলয়েড লিউকোসিস, ওমফ্যালাইটিস, প্যারাটাইফয়েড ইনফেকশন, ভাইরাল আরথ্রাইটিস, এনসেফালোমাইলাইটিস, এগ ড্রপসিনড্রম,এ্যাসপারজিলোসিস,ইনফেকসাস করাইজা,সোলেন হেড সিনড্রম,

গ শ্রেণী

ম্যালিয়ইডিস, পোলিফারেটিভ স্টোমাটাইটিস, ফুট রট,এভিয়ান টিউবারকিউলোসিস,ইনক্লশান বডি হেপাটাইটিস, রোটাভাইরাল ইনফেকশান ইন চিকেন,থ্রাস(ক্যানডিডিয়াসিস), এভিয়ান স্পাইরোকিটোসিস, স্টেফাইলোকক্কোসিস, স্ট্রেপটোকক্কোসিস,  কোয়েল ব্রংকাইটিস, সিটাকোসিস,

রোগ সম্পর্কে সচেতনতার অভাব, অসূস্থ পশু স্থানামত্মর অসুবিদা। প্রয়োজনীয় জ্ঞানের অভাব।

জনবল স্বল্পতা

ঔষধ স্বল্পতা

রোগ নির্ণয়ে সীমিত সুযোগ সুবিদা।

কৃত্রিম প্রজনন কার্যক্রম সম্প্রসারন

উপকারভোগীর গরম হওয়া গাভীকে উন্নত জাতের পশুর তরল/হিমায়িত বীজ দ্বারা কৃত্রিম প্রজনন

সচেতনতার অভাব, বীজ  ক্রয়ে অনিহা, বীজ বাছাইয়ে ধারণার ন্বল্পতা।

মাঠ সহকারীদের দক্ষতার অভাব, প্রয়োজনীয় ঔষধের অভাব, আনুষাঙ্গীক সুযোগ সুবিদার অভাব।

বার্ড-ফ্লু রোগের ক্ষতিপুরণ

ধ্বংশকৃত হাঁস-মুরগীর ক্ষতিপুরণ প্রদান

আস্থার অভাব, ক্ষতিপুরণ মূল্য যধাযথ নয়, ক্ষতিপূরণ পেতে দেরী, রোগ নির্ণয়ে সচেতনতার অভাব।

সকল পর্যায়ে সার্ভিলেন্স কর্মসূচী জোড়দারের অভাব, জনবল স্বল্পতা, আর্থিক সীমাবদ্ধতা।

প্রশিক্ষন

 

হাঁস-মুরগী পালন প্রশিক্ণ

গাভী পালন প্রঃ

ছাগল পালন প্রঃ

ভেড়া পালন প্রঃ

মহিষ পালন প্রঃ

কোয়েল পালন পঃ

কবুতর পালন প্রঃ
উদ্যোক্তা উন্নয়ন প্রঃ

গরম্ন মোটাতাজাকরন প্রঃ

ঘাস চাষ প্রঃ

গবাদি জাত উন্নয়ন প্রঃ

খামার ব্যবস্থাপনা প্রঃ

জাত উন্নয়ন প্র্র্র্র্র্র্র্র্র্র্র্র্র্র্র্র্রঃ

উপযুক্ত পাথী নির্বাচনের অভাব, উপযুক্ত জ্ঞানের অভাব।

     প্রার্থী নির্বাচনে নিরপেক্ষতার অভাব, আর্থিক সীমাবদ্ধতা।

ঋণ বিতরণ্

হাঁস-মুরগী পালনের জন্য ক্ষুদ্রঋণ বিতরণ

গাভীর ঋণ বিতরন

ছাগল পালন ঋণ বিতরণ

খামার স্থাপনের ঋণ বিতরণ

ঋণের অপব্যবহার, প্রয়োজনীয় জ্ঞানের অভাব।

আর্থিক সীমাবদ্ধতা।

গবাদিপশু ও হাঁস-মুরগীর টিকা প্র্রদান

ক্ষুরা রোগের টিকা প্রদান

জলাতংক রোগের টিকা প্রদান

 তড়কা রোগের টিকা প্রদান

বাদলা রোগের  টিকা প্রদান

গলাফুলা রোগের টিকা প্রদান

বাচ্চা মুরগীর রাণীক্ষেত টিকা প্রদান

বড় মুরগীর  রাণীক্ষেত টিকা প্রদান

ফাউল পক্স টিকা প্রদান

পিজিয়ন পক্স টিকা প্রদান

ডাক প্লেগ  টিকা প্রদান

হাঁস-মুরগীর কলেরা রোগের টিকা প্রদান

মুরগীর টাইফয়েড রোগের টিকা প্রদান

সচেতনতার অভাব, প্রয়োজনীয় জ্ঞানের অভাব।

টিকার স্বল্পতা

জনবল স্বল্পতা

আর্থিক সীমাবদ্ধতা

খামার থেকে উৎপাদিত পণ্য বিক্রয়

দুধ, ডিম, মোরগ-মুরগী, হাঁস ও বিভিন্ন বয়সের গবাদিপশু বিক্রয়।

পর্যাপ্ত সরবরাহ নিশ্চিত নয় বিধায় উপকরণ সহজলভ্য নয়।

উৎপাদন স্বল্পতা

জনবল স্বল্পতা

আর্থিক সীমাবদ্ধতা

 

নাগরিক সেবার তথ্য সারনী

 

ক্রঃ নং

বিভাগ/দপ্তর

সেবা সমূহ/সেবার নাম

দ্বায়িত্ব প্রাপ্ত কর্মকর্তা/কর্মচারী

সেবা প্রদানের পদ্ধতি

সেবা প্রদানের প্রয়োজনীয় সময়

সেবা প্রদানের প্রয়োজনীয় ফি

সংশি­ষ্ট আইন/বিধিবিধান

সেবা প্রদানে ব্যর্থ হলে প্রতিকারের বিধান

ফ্রিকোয়েন্সী

১।

উপজেলা প্রাণিসম্পদ দপ্তর

গবাদিপশুর চিকিৎসা প্রদান

 

ভেটেরিনারি সার্জন

উপজেলা প্রাণি হাসপাতালে অসুস্থ গবাদিপশুর চিকিৎসা প্রদান করা হয়ে থাকে। খামারী/গবাদিপশুর মালিকগন অসুস্থ গবাদিপশুকে হাসপাতালে নিয়ে আসেন । সেখানে প্রয়োজনীয় পরীক্ষা নিরীক্ষার  পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাপত্র সহ ঔষধ প্রধান করা হয়ে থাকে।

তাৎক্ষনিক

প্রযোজ্য নয়

পশুকে আরাম দায়ক পরিবেশে চিকিৎসা প্রদান করিতে হইবে।

উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা

গবাদিপশু পালনকারী সকল লোক জড়িত।

১৬ কোটি লোক জড়িত

২।

 

কৃত্রিম প্রজনন সম্প্রসারণ

মাঠ সহকারী কৃত্রিম প্রজনন

গাভী গরম হওয়ার ১০-২০ ঘন্টার মধ্যে গাভীকে প্রজনন করানো হয়। খামারী /পশুর মালিকগণ গাভী গরম হওয়ার পর প্রজনন কেন্দ্রে নিয়ে আসে। উপযুক্ত পরীক্ষা নিরীক্ষার পর সরকারী রশিদের মাধ্যমে ফি আদায়ের পর নিয়ম অনুযায়ী কৃত্রিম প্রজনন করানো হয়।

গাভী গরম হওয়ার পর ১০-২০ ঘন্টার মধ্যে।

১৫/-

৩০/-

দ্বিতীয় /পুনঃ প্রজনন ফ্রি

উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা

৫০ লক্ষ লোক জড়িত

৩।

 

গবাদিপশুর টিকাদান

ইউএলএ, ভিএফএ,

নিয়মিতভাবে এলাকার চাহিদা অনুযায়ী নিবিড় টিকাদান কর্মসূচী পরিচালনা করা হয়ে থাকে। কমপক্ষে ১৫ দিন অম্তর এক একটি রোগের প্রতিষেধক রোগের টিকা প্রদান করা হয়ে থাকে।

হঠাৎ কোন রোগের প্রাদুর্ভা&ব দেখা দিলে জরম্নরী ভিত্তিতে ঐ রোগের টিকা প্রদান করা হয়।

নির্দিষ্ট পশুকে নির্দিষ্ট রোগের টিকা প্রদান করা হয়।

৭ দিন

 

 

 

 

 

২দিন

 

টিকা প্রাপ্তি সাপেক্ষে

সরকার নির্ধারিত মূল্য

অসুস্থ পশুকে টিকা দেওয়া যাবে না।

উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা

ছয় কোটি লোক জড়িত

৪।

 

হাঁস-মুরগীর টিকাদান

ইউএলএ, ভিএফএ,

প্রতি সপ্তাহে একদিন উপজেলা প্রাণি হাসপাতালে হাঁস-মুরগীর টিকা প্রদান করা হয়।

ইউনিয়ন পশুপাখী কল্যান কেন্দ্রে প্রয়োজন অনুযায়ী টিকা প্রদান করা হয়ে থাকে ।

সেবাকর্মীর মাধ্যমে কোন নির্দিণ্ট এলাকায় চাহিদা মোতাবেক টিকা প্রদান করা হয়ে থাকে।

সরকারী/বেসরকানী খামার সমূহে রুটিন মাফিক টিকা প্রদান করা হয়।

৭ দিন

সরকার নির্ধারিত মূল্য অনুযায়ী ফি আদায় করা হয়।

অসুস্থ হাঁস-মুরগীকে টিকা দেওয়া যাবে না।

উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা

২ দুই (কোটি) লোক জড়িত

৫।

 

প্রশিক্ষণ

 উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা

প্রয়োজনীয় বরাদ্দ পাওয়ার পর ভিএফএ, ইউএলএ এবং ইউপি মেম্বার সমন্বয়ে তালিকা প্রনয়ণ করার পর ইউপি সভা এবং উপজেলা পরিষদ সভায় তালিকা অনুমোদনের পর প্রশিক্ষণের দিন, তারিখ এবং সময় নির্ধারণ করা হয় এবং সংশিষ্টদের অবহিত করা হয়। প্রয়োজন অনুযায়ী অতিথি বক্তা নির্বাচন করা হয়। নির্দিষ্ট সময় প্রশিকনর দেওয়ার পর প্রশিক্ষণ সমাপ্ত করা হয়।

বিষয় অনুযায়ী সময়

নির্ধারণ কনা হয়।

প্রযোজ্য নয়

সংশিষ্ট এলাকার বাসিন্দা হতে হবে।

উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা

 

 

 

 

গড়ে ৫০,০০০ জন প্রতি বছর

 

ঋণ বিতরণ

উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা

প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ প্রদানের পর বরাদ্দ প্রাপ্তি সাপেক্ষে সরকারী নিয়ম মোতাবেক জন প্রতি হারে ঋণ প্রদান করা হয়। ক্ষুদ্র ঋণ উপজেলা অফিস থেকে এবং বুহদাকার ঋণ ব্যাংকের মাধ্যমে প্রদান করা হয়।

সংস্থান মোতাবেক

প্রযোজ্য নয়।

সংশিষ্ট এলাকার বাসিন্দা হতে হবে।

উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা

 

 

 

 

গড়ে ৫০০০ জন প্রতি বছর

৭.

 

ক্ষতিপুরণ প্রদান

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা

সরকারী প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে হাঁস-মুরগী ধ্বংশ করার পর ধ্বংশকৃত মুরগীর তালিকা অনুযায়ী সরকারী ক্ষতিপুরণ দেওয়া হয়। ধ্বংশকৃত মোরগ মুরগীর তালিকা ইউএলও এবং ডিএলও সাহেবের মাধ্যমে মহাপরিচালক বরাবরে প্রেরণ করা হয়। মহাপরিচালক কতৃক অনুমোদনের পর প্রকল্প পরিচালকের মাধ্যমে জেলা প্রশাসক বরাবরে বরাদ্দ প্রদান করা হয় । জেলা প্রশাসক টাকা উত্তোলনের পর ইউএনও এবং ইউএলও সাহেবের মাথ্যমে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে বিতরণ করা হয়।

৩০ দিন

সরকার নির্ধারিত

মূল্য অনুযায়ী ক্ষতিপুরণ প্রদান কনা হয়।

-

মহাপরিচালক প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর

গড়ে ৩০০ জন প্রতি বছর

৮.

 

প্রাণিজাত উৎপাদিত পণ্য বিক্রয়

খামার ব্যবস্থাপক, বিক্রয়কারী

সরকার কতৃক নির্ধারিত মূল্যে সরকারী খামার থেকে উৎপাদিত পণ্য সামগ্রী বিক্রয় করা হয়। উৎপাদিত পণ্য বিক্রয় কেন্দ্রে আনা হয় এবং সরকারী রশিদের মাধ্যমে টাকা আদায়ের পর পণ্য সরবরাহ করা হয়।

পণ্য প্রাপ্তি সাপেক্ষে

সরকার নির্ধারিত মূল্যে

নিধূারিত মূল্যের কম বা বেশী বিক্রয় করা যাবে না।

পরিচালক উৎপাদন

গড়ে বছরে ২ কোটি

৯.

 

লাইসেন্স/
 পারমিট/ সার্টিফিকেট/ অনুমতি পত্র ইস্যু

মহাপরিচালক প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর

নির্ধারিত ফি প্রদান সাপেক্ষে ঠিকদারী লাইসেন্স প্রদান করা হয়।গবাদিপশু আমদানী রপ্তানী পারমিট প্রদান করা হয়। বিদেশ থেকে আনিত/দেশথেকে বিদেশে নেওয়ার জন্য পশুর রোগমুক্ত সাটিঁফিকেট প্রদান করা হয়। গবাদিপশু জবাই এর পূর্বে সার্টিফিকেট প্রদান করা হয়। গবাদিপশুর ঔষধ, খাদ্যদ্রব্য, পোল্ট্রি ফিড ও ফিড এডিটিভ  আমদানির পূর্বে অনুমতি পত্র ইস্যু করা হয়।

৩০ দিন

সরকার নির্ধারিত মূল্যে

সরকারী বিধিবিধান অনুযায়ী।

সচিব, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়।

৫০০ জন প্রতি বছর।

১০.

 

পুনর্বাসন ও উপকরণ সহায়তা

উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা

দুর্যোগময় পরিস্থিতিতে/বিশেষ পরিস্থিতিতে পুনর্বাসন  ও ক্ষতিপুরণ প্রদান করা হয়। সরকার কতৃক প্রদানকৃত/বরাদ্দকৃত অর্থ/উপকরণ  অগ্রাধিকার তালিকা প্রণয়নের মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট ক্ষতিগ্রস্ত খামারী/পালনকারীদের মাঝে পুনর্বাসন ও উপকরণ সহায়তা প্রদান করা হয়।

প্রাপ্তি সাপেকে্ ৭ দিন

বিনামূল্যে

সংশ্লিষ্ট এলাকার অধিবাসী হতে হবে।

জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা।

গড়ে ৫০০০০০ জন প্রতি বছর

 


Share with :

Facebook Twitter